শ্রীশুভ্র'র এক গুচ্ছ কবিতা
শুভ্র ভট্টাচার্য্য, শনিবার, অক্টোবর ০৬, ২০১২


***"নাজনীন"***

আমি যেন নবীন হয়ে উঠি
আরো, তোমার ওই ঠোঁটের
স্বাদে নাজনীন!
বিবর্ণ প্রাসাদের ছায়া ফেলে
পিছনে; সোনালী আগুনে
তোমার সারাদিন--

পুড়ে পুড়ে রাঙা হয়!
রাঙা হয়ে ওঠে তোমার
শরীরে ঐ আমার শরীর!
এ দাহ প্রদাহ নয়!
পৃথিবীর বয়সী হয়েও
অনেক গভীর!

মৃত সব প্রেমিকের হাহূতাশ
এখনো খেলে বেড়ায়
তোমার এলো চুলে!
তবু আমারও মৃত্যু হলে
নাজনীন! আমাকেও কি
যাবে বল ভুলে?

আজ রাতে প্রলয় হবে না
জানি! তবুও আমার ঢেউ
সাঁতরালে তোমার ভিতরে-
পৃথিবী সবুজ হতে পারে
মায়া সভ্যতার মশাল নিয়ে
আমাদের নাগরিক ভীড়ে!

সন্ধ্যার নদীর মতো তোমার তনুর শ্রী-তে তবু- সমাগত প্রেম ভালোবাসা সব!
সাম্রাজ্য পতনের মতো
লোভ লালসার রেখে যাবে
শেষ অনুভব!

===শ্রীশুভ্র**(০৫/১০/১২)
______________________________

***শুধু এই চঞ্চলতা***

কেন পান্থ এ চঞ্চলতা!
আজি শ্রাবণঘনগহন মোহে
দিয়ে গেল কি কেউ
মৌনমুখরমনে শতেক ব্যাথা?

কেন পান্থ এ চঞ্চলতা!
এসেছিল তবু কি আসে নাই
বিন্দু বিন্দু চরণ চিহ্নে ফেলে
চলে যাওয়া সে উদাসীনতা?

কেন পান্থ এ চঞ্চলতা!
ঝড়ের রাতের হৃদয় অভিসারিকা,
ছলছল নদীধারা নিবিড় ছায়ায়-
প্রদীপ নিভাল কেন তন্দ্রাগতা?

পথিকবিহীন পথের ধারে
আজি শ্রাবণনিশীথ বর্ষাহারা,
মর্মরমুখরিত মৃদুপবনে
ক্লান্ত পান্থ আজি সঙ্গীহারা!

বিদায় বিষাদে উদাসমত
বিরহবিশঙ্কিত করুণ কথা!
ব্যর্থ শূন্য নিয়ে প্রতীক্ষা রত
ক্লান্ত পান্থ তার চঞ্চলতা!

তিমিরনিবিড় হৃদয় হূতাশে
বিদ্যুৎ শিখা জ্বালো!
হৃদয়মন্দ্রিত মিলনস্বপ্নে তবু
(পান্থ) এ চঞ্চলতা ভালো!
_____________________________________

***"‎"জনান্তিকে"***

নিজের সাথে কিছুক্ষণ
আড়ালে আবডালে যথকিঞ্চিৎ!
আলোর ফ্রেম থেকে
উত্তাপ খুলে নিয়ে
দেখি হৃদয়ে দুলছে
হাড়গোড় শুধু নির্বাক কঙ্কালে!
বাক্য গুলোর মুখরতা ধুয়ে
নিলে কিছুটা সততায়,
কেবলই অনৃত ভাষণের পাহাড় জমে যায়!
সযতন হাসির প্রসাধন
পিছনে অহংটুকু নিয়ে
দাঁড়িয়ে মঞ্চের ফোকাসে
কেবলি! ভালোবাসার ডায়রীতে রাত নামলে
আঁধারে, সবটাই
প্রেম থাকে না আর!
অথচ সূর্য্য ছিল আলোকিত!
বাতাসে জীবনদায়ী শ্বাস!
জলের বিন্দুতে উচ্ছ্বসিত
প্রাণ! আমাদের মাটির উন্মুখে সৃষ্টির নির্মলতা নিয়ে
রোজকার সবুজ!
তবুও তোমার প্রয়োজনে
ভালোবেসে গেলে
এমনই আমাকে প্রতিদিন!
মিথ্যে আর প্রবঞ্চনার
পোশাকী জৌলুসে!
আধুনিকতার নিরীখে
প্রস্তাবিত বাস্তবতায়!

===শ্রীশুভ্র**(১৩/১০/২০১২)