রাতের ইতিহাস
সীমান্ত পথিক কবি, বুধবার, অক্টোবর ২৪, ২০১২


সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসতেই বুড়ো অশ্বথ
অস্তিত্ব সমেত অবনত বিশ্রাম বেছে নেয় ।
উড়ন্ত ধূলো চক্র বেছে নেয়
সরল ক্রান্তি রেখার পরিনাম ।
ভিখারীর অংক জ্ঞান ডুব দেয়
থলের অগোছালো অর্জনে ।
হেঁসেলের উনুনে চেপে বসে
ভিন্ন চেহারার অভিন্ন অধিকার ।
রমনীর বক্ষ বন্ধনী গুনতে শুরু করে
মুক্তির নিকট প্রহর ।

অতপর মধ্য রাত হতেই…
ধীরে ধীরে দমে যেতে থাকে
আলোর বিচিত্র অহংকার ।
আঁধারের কোলে অন্ধ হয়ে বাঁচতে চায়
জীবনের আবেদনগুলো ।
নারী মাংসের ভাঁজে ভাঁজে
উদ্দাম শিল্পের ঝড় তুলে
নিরস হিসেবি পৌরুষ ।
মাদকের মাদকতায় বিলীন হয়
সুখের ঠিকানা সাজা লক্ষ মুখোশ ।
বারবনিতার নিষিদ্ধ আঁচলে প্যাচ খায়
লোলুপ মৌ মাছির দল ।
পর্দার আড়ালে আড়ালে পাল্টে যায়
অদৃশ্য দাবার সাদা কালো দান ।
নৈশ প্রহরীর আধঘুমো ফুৎকারে
খিলাড়ি বেছে নেয় নিরাপদ সুযোগ ।

অবশেষে এগিয়ে এলে প্রভাত কিরণ,
আমরা হয়ে উঠি ফের পবিত্র প্রাণ।
স্বযত্নে এড়িয়ে চলি সদ্য ফেলে আসা
রাতের ইতিহাস।